তিন তালাক বিল

তিন তালাক বিল

ভারতের সংসদের উচ্চ কক্ষে তিন তালাক বিল পাশ হয়ে গেল গত ৩০ জুলাই ২০১৯, যে বিলটি নিম্ন কক্ষে বা লোকসভায় আগেই ২৫ জুলাই, ২০১৯ পাশ হয়েছিল। বিলটি কেতাবি নাম ‘মুসলিম মহিলা বিল, ২০১৯, The Muslim Women (Protection of Rights on Marriage) Bills, 2019. বিলটি এবার ভারতের রাষ্ট্রপতির সই হলেই আইনে পরিণত হবে। এই বিলটিকে সরকারের তরফে “ঐতিহাসিক” আখ্যায়িত করা হয়েছে। অবশ্য এমন হাস্যকর বিলকে অন্য অর্থে “ঐতিহাসিক”বলতেই হয়। এই তিন তালাক বিষয়টি কোরানের নির্দেশ মতো তিন তালাক নয়। আলোচ্য তিন তালাক তাৎক্ষণিক তিন তালাক, (instant triple talaq) যা এক সাথে তিন বার তালাক শব্দটিকে উচ্চারণ করা বোঝানো হয়েছে। এই তাৎক্ষণিক তিন তালাক কোরান নির্দেশিত নয়। এর কোনও বৈধতা নেই। তা ছাড়া এই তিন তালাক ভারতের সুপ্রিম কোর্ট দ্বারা গত ২২ আগস্ট, ২০১৭ সালে বাতিল করা হয়েছে, কারণ এক তরফা ভাবে একসাথে তিন তালাকের দ্বারা বিবাহ বিচ্ছেদ ছিল সংবিধানের ১৪ নং অনুচ্ছেদের (Article) পরিপন্থী অর্থাৎ কোনও মুসলিম স্বামী এক সাথে তিনবার তালাক শব্দ উচ্চারণ করে তার স্ত্রীকে শুনিয়ে দিলে বিবাহ বিচ্ছেদ হয় না ।সুপ্রিম কোর্টে বাতিল হওয়া এই তিন তালাকের উপর আলোচ্য “ঐতিহাসিক”বিলটি পাশ হয়েছে। তালাক একটি আরবি শব্দ যার অর্থ বিচ্ছেদ। পরপর তিনবার তালাক শব্দ উচ্চারণ করলে বিবাহ – বিচ্ছেদ তো আর হচ্ছে না, তবে আর সমস্যা কোথায়? বিবাহ বিচ্ছেদ করার অপরাধে স্বামীকে অভিযুক্ত করার কোনও যৌক্তিকতা থাকছে না। এই বিলটির ৩নং ধারায় বলা হয়েছে, কোনও মুসলিম স্বামী তার স্ত্রীর প্রতি তালাক উচ্চারণ করলে, তা লিখিত বা যে ভাবেই হোক, সে তালাক বাতিল বা অবৈধ হবে। (Sec. 3. Any pronouncement of talaq by a Muslim husband upon his wife, by words, either spoken or written or in electronic form or in any other manner whatsoever, shall be void and illegal.) ৪ নং ধারায় বলা হয়েছে, যে কোনও মুসলিম স্বামী উপরের ৩নং ধারা অনুযায়ী তার স্ত্রীর প্রতি তিন তালাক উচ্চারণ করলে সেই স্বামীর তিন বৎসর জেল এবং জরিমানা হবে। (Sec. 4. Any Muslim husband who pronounces talaq referred to in Sec. 3 upon his wife shall be punished with imprisonment for a term which may extend to three years and shall also be liable to fine) তাহলে দেখা যাচ্ছে কোনও মুসলিম স্বামী যদি তালাক উচ্চারণ না করে তার স্ত্রীকে তাড়িয়ে দেয় তখন কোনও অপরাধ হবে না। যেমন, কোনও অমুসলিম স্বামী তালাক উচ্চারণ না করে অন্যভাবে স্ত্রীদের তাড়িয়ে দিলে বা পরিত্যাগ করলে কোনও অপরাধ হয় না। ভারতের সর্বশেষ ২০১১ আদমসুমারি অনুযায়ী ২৩ লক্ষ ৭০ হাজার মহিলা বিবাহ বিচ্ছিন্না ছিলেন। তাদের মধ্য ১৯ লক্ষ হিন্দু মহিলা ।মুসলিম বিবাহ বিচ্ছিন্না মহিলা ছিল ২৮ হাজার। এই ২৮ হাজার মুসলিম মহিলাদের কতজন তাৎক্ষণিক তিন তালাকের শিকার ছিলেন তার কোনও সরকারি তথ্য নেই। তবে ১৯ লক্ষ হিন্দু বিবাহ বিচ্ছিন্না মহিলাদের কেউ তিন তালাকের শিকার ছিলেন না, এ বিষয়ে দ্বিমত চলে না।আলোচ্য এই বিলে মুসলিম মহিলাদের কোনও উপকার হবে না। সুতরাং ভারতের সমস্ত মহিলাদের কথা ভাবা হোক যেন স্বামী পরিত্যক্তা না হয়ে সম মর্যাদায় জীবন যাপন করতে পারে। এমনতর বিল যেদিন ভারতের সংসদে পাশ হবে সেই দিন হবে গৌরবের। সেই বিল হবে প্রকৃতপক্ষে ঐতিহাসিক।



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *